Agaminews
Agaminews Banner

বানারীপাড়ায় বিধবা ও তার সন্তানকে কুপিয়ে জখমের অভিযোগ


আজকের বার্তা | প্রকাশিত: এপ্রিল ২৮, ২০২১ ৬:০০ অপরাহ্ণ বানারীপাড়ায় বিধবা ও তার সন্তানকে কুপিয়ে জখমের অভিযোগ
বার্তা ডেস্ক ॥
বানারীপাড়া উপজেলার মলুহার গ্রামে সম্পত্তি দখল করতে বিধবা ও তার সন্তানকে কুপিয়ে-পিটিয়ে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় তারা ঘরবাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়। গত সোমবার রাত দশটায় নিজ বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে বাইশারী লবনসাড়া তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশের ইনচার্জ এস আই খন্দকার কামরুল ইসলাম ও তার ফোর্স আহতদের উদ্ধার করে বানারীপাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণের ব্যবস্থা করেন এমনটাই নিশ্চিত করেছেন। আহত বিধবার নাম জেসমিন বেগম, সে ওই এলাকার মৃত নূরল হকের স্ত্রী  এবং তার ছেলে ৮ বছরের শিশু জিসান। এদের মধ্যে গুরুতর জেসমিনকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ভর্তি করা হয়েছে। এবং ছেলে জিসানকে হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছে। জেসমিনের মাথায় কোপের আঘাতে সিটি স্ক্যান রিপোর্ট মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ সহ মাথার চাড়া ভেঙ্গে গেছে।তবে অবস্থার অবনতি হলে যেকোনো সময় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা যেতে পারে বলে জানিয়েছেন সার্জারি ইউনিটের কর্তব্যরত চিকিৎসক। আহত জেসমিনের ভাগিনা শহিদুল ইসলাম জানান, আহত জেসমিনের স্বামী নুরুল হক গত দেড় বছর পূর্বে হার্ট স্ট্রোক করে মারা যায়। মারা যাওয়ার মাসখানেক পর থেকে নুরুল হকের সম্পত্তি জবর দখলের চেষ্টায় ছোট ভাই জামাল ও তার পরিবারের সহযোগীরা মরিয়া হয়ে উঠছে। নূরুল হকের স্ত্রী বিধবা জেসমিন ও তার আট বছরের সন্তান জিসান কে নিয়ে কোনরকম জীবন যাপন করেন। প্রায় সময় বিধবা জেসমিনকে তার স্বামীর সম্পত্তি ও বসতভিটা থেকে উৎখাত করতে দেবর জামাল ও তার সহযোগীরা ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে বিধবা জেসমিন স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তির সহ প্রশাসনকে জানালে দেবর জামাল ক্ষিপ্ত হয়ে যায় পাশাপাশি  প্রায় সময় বিধবা জেসমিন ও তার সন্তানকে বিভিন্ন ভয়ভীতিসহ প্রাণনাশের ও হুমকি দেয়। বিধবা কোন উপায় না পেয়ে গত তিন মাস পূর্বে বরিশাল আদালতে একটি ৭ ধারা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় আসামি করা হয় বিধবার দেবর জামালসহ ৬-৭ জন কে। আদালত থেকে জামাল সহ অন্যান্য বিবাদীরা মুচলেকা দিয়ে জামিন নেয়। এবং বিধবার উপর কোন ধরনের ক্ষয়ক্ষতির সহ ঝামেলা করবে না মর্মে অঙ্গীকার করে। কয়েক শত যাওয়ার পর ফের জমি দখলের নেশায় জামাল ও তার সহযোগীরা বিধবা জেসমিন ও তার পরিবারের উপর অত্যাচার শুরু করে দেয়। বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ করলে ঘটনার দিন সোমবার রাত দশটার দিকে জামাল ও তার ছেলে রাসেল, মামুন, স্ত্রী মঞ্জু বেগম, বাগিনা রেজাউল, রেজাউলের স্ত্রী রেশমা, ভাতিজা মনোয়ার এবং তার স্ত্রী ফরিদা বেগম সহ অজ্ঞাত নামা কয়েকজন পরিকল্পিতভাবে জেসমিন ও তার অবুঝ শিশুর জিসানকে হত্যার চেষ্টা হামলা চালায়। জেসমিনকে ধারালো দাঁ দিয়ে মাথার উপরে কোপ দিয়ে রক্তাক্ত জখম করা হয়। এমন দৃশ্য দেখে ছেলে জিসান তাকে বাঁচাতে আসলে তাকেও গলা চেপে ধরে হত্যার চেষ্টা চালায় জামাল সহ অন্যান্য সহযোগীরা। এ ঘটনায় মামলার অভিযোগ দেয়া হয়েছে বলে স্বজনরা জানান।