Agaminews
Agaminews Banner

বরিশালে বাড়ছে অনলাইন ভিত্তিক সেবা কার্যক্রম


আজকের বার্তা | প্রকাশিত: এপ্রিল ২৩, ২০২১ ৫:১৬ অপরাহ্ণ বরিশালে বাড়ছে অনলাইন ভিত্তিক সেবা কার্যক্রম
শফিক মুন্সি ॥
বৈশ্বিক মহামারি করোনার গ্রাসে অন্যান্য স্থানের মতো বিপর্যস্ত দক্ষিণের বরিশাল। প্রতিনিয়ত মৃত্যু আর আক্রান্তের ভয় অমানবিক পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে সমাজে। এমন একটি সময়ে দাঁড়িয়ে ভূপেন হাজারিকার ‘মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য’ গানটি যেন হয়ে উঠেছে আরো প্রাসঙ্গিক। কিন্তু সংক্রমণ রুখতে গিয়ে একে অন্যের থেকে বিচ্ছিন্ন থাকার আহবান মানতে গিয়ে গতানুগতিক সেবা কার্যক্রম চালানো অনেকটাই দুস্কর। তাই এই দুর্যোগ মোকাবিলায় অনলাইন ভিত্তিক সেবা কার্যক্রমে মানুষের মানবিকতার জয়গানের চিত্র ধরা দিচ্ছে বরিশাল জুড়ে। এক্ষেত্রে বর্তমান সরকারের তথ্য প্রযুক্তি ও প্রকৌশলগত উন্নতি সময়োপযোগী প্রতিফলন ঘটিয়েছে অনেকখানি।  চলতি বছরের ১৫ই এপ্রিল থেকে করোনায় আক্রান্ত মুমূর্ষু রোগীদের জন্য অক্সিজেন সরবরাহ কার্যক্রম শুরু করেছে বরিশাল নগর পুলিশ (বিএমপি)। নির্ধারিত হটলাইনে কিংবা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে (ফেসবুক, টুইটার,ইন্সট্রাগ্রাম প্রভৃতি) চাইলেই বিনামূল্যে পাওয়া যাবে প্রাণরক্ষাকারী অক্সিজেন। তবে এক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শপত্র দেখাতে হবে সেবাগ্রহীতাদের। এ ব্যাপারে বিএমপি কমিশনার শাহাবুদ্দিন খান জানান, করোনায় কেউ মারাত্মকভাবে আক্রান্ত হলে তাকে অক্সিজেন দেয়া প্রয়োজন হয়। কিন্তু তৎক্ষণাৎ হয়তো অনেকের পক্ষে এই অক্সিজেনের ব্যবস্থা করা সহজ নয়। তাদের জন্য বিনামূল্যে এই সেবা চালু করা হয়েছে। তবে শুধু অনলাইনে জানাতে হবে এমন নয়। নগর পুলিশের যেকোনো থানা বা ফাঁড়িতে কিংবা কোন সদস্যকে জানালেও আক্রান্ত রোগীর বাসায় পৌঁছে দেয়া হবে অক্সিজেন।
এদিকে করোনাকালে জনপ্রিয় হয়েছে টেলিমেডিসিন নামক স্বাস্থ্যসেবা। মূলত সরাসরি উপস্থিত না হয়ে অনলাইনে বা টেলিফোনে চিকিৎসা বিষয়ক পরামর্শ গ্রহণ এই সেবার মূলকথা। বরিশাল বিভাগে সর্বপ্রথম গতবছর (২০২০) এ ধরণের পরিসেবা কার্যক্রম শুরু করে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়।
প্রতিষ্ঠানটির উপাচার্য ড. মোঃ ছাদেকুল আরেফিন বলেন, সংক্রমণ রুখতে গতবছর মার্চে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মতো বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়েরও শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। এসময়ে বাড়িতে থাকা শিক্ষার্থী সহ বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সকল সদস্যের স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা চিন্তা করে টেলিমেডিসিন কার্যক্রম শুরু করি আমরা। যোকোনো শারীরিক জটিলতা নিয়ে নির্ধারিত হটলাইনে ফোন দিলে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুজন চিকিৎসক পরামর্শ প্রদান করছেন। শুধু সরকারি সংগঠন বা প্রতিষ্ঠান নয়, বেসরকারি উদ্যোগেও অনলাইনে মানবিক সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন অনেকে। বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) বরিশাল জেলা শাখা কর্তৃক এম্বুলেন্স ও অক্সিজেন সেবা চালু করা হয়েছে অনলাইনে। ফেসবুক পেজ কিংবা হটলাইনে বরিশাল নগরীর কেউ যোগাযোগ করলেই রোগীকে হাসপাতালে পৌঁছে দেবার জন্য পাঠানো হচ্ছে এম্বুলেন্স – জরুরি দরকারে দেয়া হচ্ছে অক্সিজেন।
সংগঠনটির সদস্য সচিব ডাঃ মনীষা চক্রবর্তী জানান, গতবছর জুন থেকে তারা এই কার্যক্রম শুরু করেন। এ পর্যন্ত প্রায় চার শতাধিক সেবা গ্রহীতা অনলাইনে যোগাযোগ করে তাদের সেবা গ্রহণ করেছেন। করোনা পরিস্থিতিতে অনলাইন ভিত্তিক আরো কি কি পরিসেবা শুরু করা যায় সে ব্যাপারেও সংগঠনটি ভাবছে বলে জানান এই রাজনীতিবিদ।
চলমান পরিস্থিতিতে এসব সেবা কার্যক্রম সফল হবার পিছনে বর্তমান সরকারের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ প্রকল্প সবচেয়ে বেশি সহায়তা করেছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের শিক্ষক রাহাত হোসেন ফয়সাল জানান, বর্তমান সরকার ২০০৮ সাল থেকে ইন্টারনেট ও মোবাইলফোন সুবিধা সহজলভ্য করার যুগোপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করে। এই চেষ্টার মূলে ছিল ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মান।বর্তমানে অনলাইনে  বিভিন্ন মানবিক সেবা কার্যক্রম সঠিকভাবে সম্পন্ন হবার পিছনে ইন্টারনেট, স্মার্টফোন সহ আনুষাঙ্গিক বিষয়গুলোর যথাযথ  প্রাপ্যতা জোরালো ভূমিকা রেখেছে।