আজকের বার্তা
আজকের বার্তা

বরিশাল বিভাগে ১৮ দিনে ১০ শিশুর মৃত্যু


আজকের বার্তা | প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৮, ২০২৪ ৭:৪৭ অপরাহ্ণ বরিশাল বিভাগে ১৮ দিনে ১০ শিশুর মৃত্যু
Spread the love

বার্তা ডেস্ক ॥     ভোলা সদর হাসপাতালে গত ১৩ জানুয়ারি শ্বাসতন্ত্রে প্রদাহজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায় তিনমাস বয়সী শিশু রুহি। এই মাসেই ঝালকাঠিতে ঠান্ডাজনিত রোগে মারা গেছেন দুই শিশু। সংশ্লিষ্ট হাসপাতালগুলোতে খোঁজ নিয়ে এমন তথ্য জানা গেছে।

ঠিক একইভাবে বরিশাল বিভাগের সবচেয়ে বড় হাসপাতাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১ জানুয়ারি থেকে আজ পর্যন্ত ৭ শিশুর মৃত্যু হয়েছে ঠান্ডাজনিত রোগে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ৩০ শয্যার শিশু ওয়ার্ডে বর্তমানে দেড় শতাধিক শিশু রোগী ভর্তি আছে। আর বর্হিবিভাগে গড়ে প্রতিদিন ৪ শতাধিক রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। এরমধ্যে সিংহভাগ শিশু। অর্থাৎ বছরের প্রথম মাসের ১৮ দিনে ১০ শিশুর মৃত্যু হয়েছে ঠান্ডাজনিত রোগে।

চিকিৎসকরা বলছেন, ঠান্ডার কারণে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে নিউমোনিয়া, ব্রঙ্কিওলাইটিস, অ্যাজমা, শ্বাসকষ্ট ও ডায়রিয়াসহ শ্বাসতন্ত্রের বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত রোগী।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ১২ জানুয়ারি শিশু ওয়ার্ডে ৩১ শিশু ভর্তি হয়েছিল, একজনের মৃত্যু হয়। ১৩ জানুয়ারি ভর্তি হয়েছিল ৩০ শিশু, মারা যায় এক শিশু। ১৪ জানুয়ারি ৩১ শিশু ভর্তি হয়েছিল, মারা গিয়েছিল এক শিশু। ১৫ জানুয়ারি ৩০ শিশু ভর্তি হয়েছিল। ১৬ জানুয়ারি ৩১ শিশু ভর্তি হয়েছিল, মারা গিয়েছিল এক শিশু। ১৭ জানুয়ারি ৩০ শিশু ভর্তি হয়, মারা গেছে এক শিশু। ১২ জানুয়ারির আগে আরও দুই শিশুর মৃত্যু হয়।

সরেজমিনে শেবাচিম হাসপাতাল ঘুরে দেখা গেছে, মেডিসিন ও শিশুসহ সব ওয়ার্ড রোগীতে পরিপূর্ণ। শয্যা না পেয়ে অধিকাংশ রোগী মেঝেতে বিছানা পেতে নিয়েছেন। এদের মধ্যে বেশিরভাগ শিশু ও বয়স্ক ব্যক্তি। জ্বর-সর্দি, কাশি ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি।

হাসপাতালে ভর্তি রাফসানের মা ইয়াসমিন পারভীন বলেন, আমার সন্তানের বয়স আড়াই বছর। হঠাৎ করে তিনদিন আগে অসুস্থ হয়ে পড়ে। শ্বাসকষ্ট হতে দেখে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে আসি। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন নিউমোনিয়া আক্রান্ত। অনেক চেষ্টা করেছি একটি বেডের জন্য। কিন্তু ব্যবস্থা করতে পারিনি। মেঝেতেই আছি।

চারদিন ধরে হাসপাতালের মেঝেতে আছে কলেজ এভিনিউর বাসিন্দা জেসমিন বেগম। তার সন্তান ডায়রিয়ায় আক্রান্ত। জেসমিন জানান, হাসপাতালে কোনো বেড খালি নেই। প্রতিদিন প্রচুর রোগী আসছে। মেঝেতে রেখে চিকিৎসা করিয়ে আরও অসুস্থ হয়ে পড়ছে শিশুরা।

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু বিভাগের প্রধান ডা. উত্তম কুমার সাহা বলেন, ‌হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে ১২ জানুয়ারি থেকে জ্বর-সর্দি, কাশি ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশু রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। প্রতিদিন গড়ে ৩০ জনের বেশি শিশু ভর্তি হচ্ছে।

শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডা. এইচএম সাইফুল ইসলাম বলেন, ঠান্ডাজনিত কারণে স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বেশি রোগী আসছে প্রতিদিন। জ্বর ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত বেশিরভাগই শিশু। শিশু ওয়ার্ডে শয্যার সংখ্যা অপ্রতুল। এজন্য অনেককে মেঝেতে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে। আমাদের অপ্রতুলতা রয়েছে। তারপরও চিকিৎসকদের আন্তরিকতার ঘাটতি নেই। চিকিৎসকরা সীমাবদ্ধতার মধ্যে সর্বোচ্চ সেবা দিচ্ছেন।