Agaminews
Agaminews Banner

বানারীপাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গেটে প্রসুতির সন্তান প্রসব !


আজকের বার্তা | প্রকাশিত: মে ২৯, ২০২১ ৬:২২ অপরাহ্ণ বানারীপাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গেটে প্রসুতির সন্তান প্রসব !
রাহাদ সুমন,বানারীপাড়া(বরিশাল)প্রতিনিধি:
বরিশালের বানারীপাড়ায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গেটের সামনে মুক্তা নামের এক প্রসূতি সন্তান প্রসব করেছেন।
২৯ মে শনিবার রাত সোয়া ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, শনিবার সন্ধ্যার পরে
 উপজেলার সৈয়দকাঠি ইউনিয়নে পিত্রালয়ে বসে শান্তর স্ত্রীর প্রসব বেদনা ওঠে। পরে তাকে নিয়ে স্বামীসহ স্বজনরা বানারীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। বানারীপাড়া পৌর শহরে অবস্থিত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে শান্তর শ্বশুর বাড়ির দূরত্ব প্রায় ১০-১২  কিলোমিটার। প্রথমে অটো বাইকে এসে পরে ট্রলারে সন্ধ্যা নদী পাড়ি দিয়ে পূনরায় অটোবাইকে চড়ে তাদের  উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রসূতিকে নিয়ে আসতে হয়েছে। তবে প্রধান ফটক পেরিয়ে  স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রবেশের দ্বিতীয় ফটকে ফুটফুটে এক পুত্র সন্তান প্রসব করেন মুক্তা।
এসময় অটোবাইক চালক বৃষ্টির সময় ব্যবহারের জন্য তার কাছে থাকা পলিথিন দিয়ে প্রসূতিকে ঘিরে পর্দা তৈরী করে দেন। উপস্থিত কয়েকজন নারী এসময়  প্রসূতির সন্তান প্রসবে সহায়তা করেন। মুক্তার স্বাসী শান্ত অভিযোগ করেন হাসপাতালের জরুরী বিভাগে  দায়িত্বরত চিকিৎসক ও নার্সসহ কেউ এগিয়ে আসেননি। তার এ অভিযোগ অস্বীকার বরে আবাসিক মেডিকেল অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ডাঃ গোপাল শীল জরুরী বিভাগে দায়িত্বরত ডাঃ হাফিজুর রহমান শাকিলের বরাত দিয়ে  বলেন স্বাস্থ্য বমপ্লেক্স প্রবেশের আগেই স্বাভাবিকভাবে ওই প্রসূতি সন্তান প্রসব করায় তাকে সেবা দেওয়ার সুযোগ পাওয়া যায়নি।  উল্লেখ্য প্রসূতি মুক্তার শ্বশুর বাড়ি উজিরপুর উপজেলার হারতা ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডে। সন্তান সম্ভবা হওয়ায় সে বানারীপাড়া উপজেলার সৈয়দকাঠিতে বাবার বাড়িতে অবস্থান করছিল।
প্রসঙ্গত এর আগেও এক প্রসূতি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান ফটকের সামনের রাস্তায়  কন্যা সন্তান প্রসব করেছিলেন। তখন অভিযোগ ছিল হাসপাতালের এক নারী উপ-সহকারী মেডিকেল অফিসার  ওই প্রসূতিকে সিজারিয়ান অপারেশনের প্রয়োজনীয়তার কথা বলে  ক্লিনিকে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়ায় পথে রাস্তার মাঝে তিনি সন্তান প্রসব করেন। এ নিয়ে তখন স্থানীয়রা হাসপাতাল ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেন। ফলে তাকে শাস্তিমূলক বদলী করা হয়। তবে বিছুদিন না যেতেই অদৃশ্য খুঁটির জোরে
 তিনি পূনরায়  বানারীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ফিরে আসেন।