Agaminews
Agaminews Banner

বিশ্ব মেডিটেশন দিবসকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিচ্ছে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন


আজকের বার্তা | প্রকাশিত: মে ২৩, ২০২১ ১:৫৩ অপরাহ্ণ বিশ্ব মেডিটেশন দিবসকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিচ্ছে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পৃথিবী জুড়ে মেডিটেশনের প্রচার ও প্রসারের লক্ষ্যে ২১ মে বিশ্ব মেডিটেশন দিবস পালন করা হয়। এবারের মেডিটেশন দিবসের মূল প্রতিপাদ্য ছিল “নিয়মিত মেডিটেশন সুস্থ সফল সুখী জীবন।” দিবসটি উপলক্ষে বরিশাল জডর্ন রোডে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আরো ছিল মেডিটেশন মেলা। সবার জন্য উন্মুক্ত ছিল নানা প্রতিযোগিতা (মেডিটেশন বিষয়ক রচনা, মেডিটেশন চর্চার অনুভূতি সংক্রান্ত অডিও/ভিডিও ক্লিপ, মেডিটেশন বিষয়ক আলোকচিত্র/ফটোগ্রাফ, চিত্রাঙ্কন, মেডিটেশন বিষয়ক বাণী লিখন)। যা চলমান থাকবে ৫ জুন পর্যন্ত এবং এদের মধ্যে বিজয়ী ৫৮ জনের প্রত্যেকের জন্য থাকবে পুরষ্কার হিসেবে দশ হাজার টাকার বই। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় মেডিটেশনে অংশগ্রহণের মাধ্যমে শুরু হয় অনুষ্ঠান। ২০২০ সাল থেকে পৃথিবী জুড়ে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মানুষের ইমিউন সিস্টেম বা রোগ প্রতিরোগ ক্ষমতা বৃদ্ধির ওপর জোর দেয়া হচ্ছে। এ কথা এখন প্রমাণিত যে নিয়মিত মেডিটেশন মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

পৃথিবীর পঞ্চাশ কোটি মানুষ বর্তমানে নিয়মিত মেডিটেশন করছেন। শারীরিক মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষায় বিশ্ব মেডিটেশন দিবস পালন এবং দিনটিকে জনপ্রিয় করে তোলার মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করতে উইল উইলিয়ামস, কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের মতো ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানগুলো কাজ করে চলেছে। বৃটিশ নাগরিক উইল উইলিয়ামস এই দিনটির প্রবর্তক। বিভিন্ন দেশে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ১৫ মে-সহ বছরের বিভিন্ন সময়ে বিশ্ব মেডিটেশন দিবস পালন করে। ২০১৯ সাল থেকে বৃটেনে ছোট আকারে ২১ মে বিশ্ব মেডিটেশন দিবস পালন শুরু হয়। ‘নিয়মিত মেডিটেশন: সুস্থ সফল সুখী জীবন’ থিমকে সামনে রেখে ২১ মে ২০২১ আমেরিকা, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া, আফ্রিকা, এশিয়াসহ বিভিন্ন প্রান্তে এক সাথে একই সময়ে মেডিটেশন করার মাধ্যমে বিশ্ব মেডিটেশন দিবসকে প্রথমবারের মতো বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশের সামাজিক-মানবিক সংগঠন কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন।

তিন দশক ধরে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন সাধারণ মানুষের কাছে মেডিটেশনের কার্যকারিতা ও প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরতে অবিরাম কাজ করে যাচ্ছে। প্রাচ্য এবং পাশ্চাত্যের মেডিটেশন পদ্ধতির সমন্বয়ে গড়ে উঠেছে কোয়ান্টামের ধ্যান পদ্ধতি। কোয়ান্টাম মেথড নামে পরিচিত এই মেডিটেশন পদ্ধতির প্রবর্তক শহীদ আল বোখারী মহাজাতক। যিনি এখন পর্যন্ত প্রায় ৪৭৫টি ব্যাচে কয়েক লাখ মানুষকে সরাসরি মেডিটেশনের কৌশল শিক্ষা দিয়েছেন। মনের ওপর পরিপূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা ও আত্মিক পরিশুদ্ধির জন্য প্রাচ্যে মেডিটেশনের চর্চা অন্তত পাঁচ হাজার বছর ধরে চলে এসেছে। আড়াই হাজার বছর আগে ধ্যানকে সাধারণ মানুষের উপযোগী করে তোলেন গৌতম বুদ্ধ।

প্রাথমিক অবস্থায় ধ্যানের চর্চা ও প্রসার ঘটে বাংলায়। বিশেষ করে এর উচ্চশিক্ষার স্থান মহাবিহারগুলোতে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ধ্যানের চর্চা শুরু হয়। এই ধ্যান পরবর্তীতে চায়না ও পূর্ব এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা, ইউরোপ, আমেরিকা হয়ে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়ে। আধুনিক মেডিটেশন এখন আত্মিক উন্নতি, মানসিক প্রশান্তি, শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি বৈষয়িক উন্নতির মাধ্যম হিসেবেও ব্যবহৃত হচ্ছে।