Agaminews
Agaminews Banner

আদালতের সিদ্ধান্তের তোয়াক্কা না করে বাকেরগঞ্জে অন্যের জমিতে বসতবাড়ি নির্মাণের অভিযোগ


আজকের বার্তা | প্রকাশিত: মে ০৮, ২০২১ ৫:৩৪ অপরাহ্ণ আদালতের সিদ্ধান্তের তোয়াক্কা না করে বাকেরগঞ্জে অন্যের জমিতে বসতবাড়ি নির্মাণের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার ॥
বাকেরগঞ্জ উপজেলার ৪৩ নং রঙ্গর্শ্রী ইউনিয়নস্থ এলাকায় একজনের ক্রয়কৃত জমিতে স্থানীয় প্রভাবশালী মহল কর্তৃক অবৈধভাবে বসতঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে মামলা করা হলে আদালত সেখানে স্থাপনা নির্মাণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে বলে জানা গেছে। তবে আদালতের নির্দেশনার তোয়াক্কা না করে প্রভাবশালী মহলটি বেআইনি ভাবে জমি দখলে নেবার পায়তারা করছে বলেও জানান বাদীপক্ষ। মামলা সূত্রে জানা যায়, সরকারি বাকেরগঞ্জ কলেজের পিছনে গতবছর (২০২০) দশমিক ৮৮ (.০০৮৮) শতাংশ জমি কেনেন স্থানীয় রঙ্গর্শ্রী ইউনিয়নের মৃত সয়জদ্দিন হাওলাদারের পুত্র মোঃ হাবিবুর রহমান। তিনি জমিটুকু চলাচলের রাস্তা হিসেবে ব্যবহার শুরু করেন।কিন্তু ঐ জমি নিয়ে বাদীর সঙ্গে বিরোধে জড়ায় স্থানীয় প্রভাবশালী শেখ আব্দুর রশিদ, মোঃহাবিবুর রহমান বিশ্বাস, হাবিব খলিফা, শেখ রিমন, শেখ লিটন ও মিন্টু বিশ্বাস গং। তারা চলতি বছরের ২৮ এপ্রিল থেকে উক্ত জায়গা বেদখল করে বসত ঘর নির্মাণ চেষ্টা করেন। পরবর্তীতে গত ১লা মে (রোববার) বাকেরগঞ্জ সহকারী জজ আদালতে বিষটির প্রতিকার চেয়ে মামলা দায়ের (মামলা নং ৭০/২০২১) করেন বাদী মোঃ হাবিবুর রহমান। পরদিন বিচারক মোঃ মনিরুজ্জামান ভার্চুয়াল আদালতের শুনানির মাধ্যমে আগামী ১১ মে বিচারের পরবর্তী কার্যদিবস ধার্য করেন। সে পর্যন্ত মামলাধীন জমিতে কোনধরনের স্থাপনা নির্মাণের ওপরও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। তবে বাদী মোঃ হাবিবুর রহমানের দাবি, আদালতের নির্দেশনা অমান্য করে উক্ত মহল জমিতে বসতঘরের পিলার নির্মাণ জারি রেখেছে। এতে করে তাঁর (বাদীর) ক্রয়কৃত জমির ওপর অন্যের মালিকানা সৃষ্টির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। দ্রুত এভাবে বেদখল রুখতে না পারলে তিনি ক্ষতির সম্মুখীন হবে। আর বাদীর আইনজীবী এড.আজাদ রহমান বলেন, যে জমিটুকু নিয়ে মামলা চলমান সেখানে নতুন করে কোন স্থাপনা নির্মাণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে আদালত। তবে যতটুকু জেনেছি বিবাদী পক্ষ আদালতের সিদ্ধান্ত তোয়াক্কা না করে স্থাপনা নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। যা সম্পূর্ণ বেআইনি ও আদালত অবমাননার শামিল। তবে মামলার বিবাদী মোঃ হাবিবুর রহমান বিশ্বাস বলেন, যে জমি নিয়ে মামলা হয়েছে সেখানে আমাদের মালিকানা রয়েছে।তাই সেখানে স্থাপনা নির্মাণের কাজ চলছিল। আদালত আগামী ১১ই মে আমাদের কাগজপত্র দাখিল করতে নির্দেশ দিয়েছে। কিন্তু স্থাপনা নির্মাণ বন্ধে কোন সিদ্ধান্ত দিয়েছে বলে আমাদের জানা নেই ।