আজকের বার্তা
আজকের বার্তা

রাতের আধাঁরে তড়িঘড়ি করে বালু ভরাট কাজে বাঁধা


আজকের বার্তা | প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১২, ২০২৩ ১২:২৯ অপরাহ্ণ রাতের আধাঁরে তড়িঘড়ি করে বালু ভরাট কাজে বাঁধা
Spread the love

বার্তা ডেস্ক ॥ উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও তড়িঘড়ি করে নগরীর কাউনিয়া হাউজিং প্রকল্পে রাতের আঁধারে প্লটের বালু ভরাট করছিলেন বরিশাল সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা। এ সময় এলাকাবাসী মসজিদের মাইকে স্থানীয়দের ঝাপিয়ে পড়ার ঘোষণা করেন। একপর্যায়ে স্থানীয়দের তোপের মুখে পিছু হটেছেন বিসিসির কর্মকর্তারা।

খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে নগরীর ১নম্বর ওয়ার্ডস্থ কাউনিয়া মাজার বাড়ি এলাকায়। স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল সিটি করপোরেশনকে দান করা জমি হাউজিং প্রকল্প আকারে টাকার বিনিময়ে বিক্রি করা হয়েছে। এনিয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করলে বিচারক ওই প্রকল্পের কার্যক্রমের ওপর স্থিতি অবস্থা জারি করেন। আদালতের আদেশ অমান্য করে প্রকল্পের বরাদ্দ পাওয়া মালিকরা করপোরেশনের কতিপয় কর্মকর্তার উপস্থিতিতে সোমবার মধ্যরাতে বালু ভরাটের কাজ শুরু করেন। এতে করে প্রকল্পের পাশ্ববর্তী এলাকার জমির মালিকগণ পানিবন্দি ও চলাচলের রাস্তায় বিঘœ হওয়ার শঙ্কায় বালু ভরাট কাজে বাঁধা প্রদান করেন। একপর্যায়ে স্থানীয়রা মসজিদের মাইকে এলাকাবাসীকে ঝাঁপিয়ে পরার ঘোষণা করেন। মাইকিং শুনে এলাকাবাসী ঝাপিয়ে পড়লে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। পরবর্তীতে উপায়অন্তুর না পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাসহ অন্যান্যরা দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। পরে স্থানীয়রা একত্র হয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।

স্থানীয় নুরুল হক নামের এক ব্যক্তি বলেন, সিটি করপোরেশন প্রকল্পের মাধ্যমে আমাদের জমির সামনে প্লট বরাদ্দ দিয়েছে। এতে আমাদের জন্য চলাচলের রাস্তা ও পানি নিস্কাসনের জন্য ড্রেন রাখা হয়নি। ফলে সামন্য বৃষ্টিতেই আমরা পানিবন্দি হয়ে পরবো। তিনি আরও বলেন, ওই প্লটে ঘরবাড়ি উত্তোলন করা হলে আমাদের চলাচলের জন্য কোন রাস্তা থাকবে না। তাই আমরা চলাচলের জন্য রাস্তা ও পানি নিস্কাসনের জন্য ড্রেনেজ ব্যবস্থার দাবি করে আসছি।

সিটি করপোরেশনের ১ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত কাউন্সিলর আউয়াল মোল্লা বলেন, সিটি করপোরেশন প্রকল্পের প্লট বরাদ্দ দিয়েছে তাতে আমাদের কোন আপত্তি নেই। কিন্তু পাশের জমির মালিকদের জন্য ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও চলাচলের রাস্তা করে দিতে হবে। মঙ্গলবার দুপুরে কাউনিয়া থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। ওসি (তদন্ত) আরও বলেন, যেহেতু ওই প্রকল্প নিয়ে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে, আর হাইকোর্ট স্থিতি অবস্থা জারি করেছে। সেহেতু ভরাট কাজ বন্ধ রাখা উচিত ছিলো।